ক্যাম্পাস

বাসার কাজের বুয়াও ডাক্তারের চেয়ে বেশি সম্মানের সাথে কাজ করে

রাজধানীর কুয়েত বাংলাদেশ মৈত্রী হাসপাতালের ৬ জন চিকিৎসককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তার মধ্যে একজন চিকিৎসক জুনিয়র কনসালট্যান্ট (স্ত্রীরোগ ও প্রসূতিবিদ্যা) শারমিন হোসেন। ফেসবুক লাইভে তিনি কর্তৃপক্ষের এমন সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়েছেন। তার মতে, বাসার কাজের বুয়াও ডাক্তারের চেয়ে বেশি সম্মানের সাথে কাজ করে। এটা ডাক্তার সমাজের কলঙ্ক। গোটা ডাক্তার সমাজকে হেয় প্রতিপন্ন করা হয়েছে।

রবিবার ফেসবুক লাইভে এসে শারমিন হোসেন আরও বলেন, তত্ত্বাবধায়ক স্যার আমাকে কিছু না জানিয়ে আমার বিরুদ্ধে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে নাম পাঠিয়েছেন যে আমি নাকি কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসা দিতে ইচ্ছুক না। এমন কথা আমি মৌখিক বা লিখিতভাবে কখনো স্যারের কাছে অথবা কারও কাছে প্রকাশ করেছি বলে আমার জানা নেই।

১ থেকে ৭ এপ্রিল পর্যন্ত কাজ করেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, রাতের ডিউটি করে বাসায় ফিরি। এক দিন পর জানতে পারি আমি নাকি বরখাস্ত। আমি আমার স্যারের কাছে গেলাম উনাকে জিজ্ঞেস করলাম আমি তো ৮ তারিখে সকালে গেলাম। আমি কি কখনো বলেছি আমি চিকিৎসা দিতে অনিচ্ছুক। উনি বললেন এটা ভুলে হয়েছে। আমাকে কোনো ফরওয়ার্ডিং দিলেন না। বললেন আমার একটা ফোনই যথেষ্ট।

শারমিন হোসেন তার হাজিরা খাতার অনুলিপি নিয়ে রবিবার সকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন) মো. বেলাল হোসেনের সঙ্গে দেখা করেন বলেও জানান। কর্মক্ষেত্রে সম্মান নেই উল্লেখ করে শারমিন বলেন, বাসার বুয়াকে বিদায় করার আগেও তো ১০০ বার চিন্তা করি। বাসার বুয়াও আমার চেয়ে সম্মানের সাথে কাজ করে। এটার আমার একার কলঙ্ক বলে মনে করি না, এটা ডাক্তার সমাজের কলঙ্ক। গোটা ডাক্তার সমাজকে হেয় প্রতিপন্ন করা।

ক্যাম্পাস জয়গান

মন্তব্য লিখুন

Follow us

Don't be shy, get in touch. We love meeting interesting people and making new friends.